মৃত্তিকা সংলগ্ন জীবনের স্বপ্ন

স্বপ্ন দেখি মৃত্তিকা সংলগ্ন জীবন,
আজীবন।
চাই, সব সময় থাকতে
মাটি ও মানুষের সাথে।
চাই না
প্রযুক্তিনির্ভর কৃত্রিম জীবন।
মধ‍্যবিত্ত এ জীবন আমার
সুখের, শান্তির, শুদ্ধ আনন্দের।
তেমন সম্পদ-স্বচ্ছলতা চাই না,
যা বিযুক্ত করে আমাদের
সামাজিক মূল্যবোধ হতে।

নাম জানা, না জানা পাখির আওয়াজ
শুনতে পাই অবিরত। সারাদিন।
পিঁপড়ার সারি, কেঁচোর মাটি তোলা,
শালিকের উড়ে যাওয়া,
কিচিরমিচির শ্রান্তিহীন,
ঘুঘুর আওয়াজ একটানা,
আমের মুকুল ভরপুর,
পাকা কাঁঠালের সুবাস,
ভেজা মাটির ঘ্রাণ, বিস্তীর্ণ বিল,
ধানের সবুজ সজীবতা
কিংবা সোনালী সফলতা,
বিছানো ঝরা ফুল, ডোবার গন্ধ,
কালচে তামাটে রংয়ের
কৃষক শ্রমিক সাধারণ মানুষ।

কতো বর্ণনা এভাবে দেয়া যায় …!
অফুরান। জীবনের।
অভিজ্ঞতার প্রতিটি বিন্দু, প্রতিটা মুহূর্ত
কতো না গভীর …!
ভাষাতীত। শুধু অনুভবের।

স্বপ্ন দেখি, মাটির কাছাকাছি
নূন্যতম নাগরিক সুবিধাসম্পন্ন
এক গ্রাম্য জীবনের।
সত‍্যিকথা হলো,
এমন এক স্বপ্নের মাঝেই
আমাদের নিত‍্যদিন বসবাস।
পাহাড় ঘেরা এই গ্রাম সংলগ্ন
প্রাচীন সবুজ ক‍্যাম্পাসে।

২২শে এপ্রিল, ২০১৮
এস ই – ২৮
দক্ষিণ ক‍্যাম্পাস
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

[ছবিগুলো আজকের। কিছুক্ষণ আগে এক কৃষকের আনাড়ি হাতে তোলা। বনবিদ্যা ইনস্টিটিউট সংলগ্ন বিলে।]

লেখাটির ফেসবুক লিংক

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক

নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে পড়াই। চাটগাইয়া। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *