চাই ইসলামী আন্দোলনের পেশাভিত্তিক ও বিকল্প ধারা

বাংলাদেশের প্রচলিত ইসলামী আন্দোলনের যে ধারা তা একবিংশ শতাব্দীর প্রেক্ষিতে একটি পূর্ণ সমাজ বিপ্লবের জন্য উপযুক্ত নয় বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি। ইসলামী আন্দোলনের মূল ধারা নিজেকে এডাপ্ট করে নিবে – আমার পর্যবেক্ষণে এটিও দুরাশা। একটি সিলসিলা হিসাবে এটি টিকে থাকবে। যেভাবে টিকে থাকবে প্রচলিত মাদ্রাসাসমূহ, তাবলীগ জামাত ইত্যাদি।

আমার গড়ে উঠা: ইসলামী আন্দোলনের দিক হতে আমি আজকে যেখানে আছি, তিন দিক হতে পর্যাপ্ত সাপোর্ট পাওয়ার কারণেই সেটি সম্ভব হয়েছে– আমার পরিবার, বাংলাদেশের বিদ্যমান সামাজিক ইসলাম এবং প্রচলিত ইসলামী আন্দোলনে আমার অতীত ও বর্তমান সম্পৃক্ততা। যেভাবে স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ চুকিয়ে আজ আমি সফল কর্মজীবী। স্কুলের পড়া শেষ না করলে আমি কলেজের পড়া বুঝতাম না। কলেজের পড়া ভালোভাবে আয়ত্ব না করলে বিশ্ববিদ্যালয়ে চান্স পেতাম না। বিশ্ববিদ্যালয়ে যা পড়েছি তা নিঃসন্দেহে স্কুল কলেজ হতে অনেক উন্নত। লেখাপড়া করা এবং তা আমার যে কোনো পছন্দনীয় বিষয় নিয়েই হতে পারে, এটিই যেহেতু আমার পেশা। এখন বুঝি আগে কত কম পড়েছি, কত কম বুঝেছি। যখন বোঝাতে যাই, তখন বুঝি…।

এসব কথা এজন্যই বললাম, আমার বাবা-মা, বড় ভাইবোন, প্রাক্তন শিক্ষকবৃন্দ – আমাকে গড়ে তোলার ব্যাপারে এদের অবদান অপরিসীম ও অপরিশোধযোগ্য। তাই বলে আমি যদি তাঁদের চিন্তা-চেতনায়, চৌহদ্দিতে নিজেকে কনফাইন্ড করে রাখি, সেটি কি ঠিক হবে? ইসলামী আন্দোলন সম্পর্কে আমার দৃষ্টিভঙ্গি বুঝতে হলে বুঝতে হবে – শিক্ষক নয়, শিক্ষাই অনুসরণীয়। এমনকি কখনো যদি তা শিক্ষকের বিরুদ্ধেও যায়।

অর্গানাইজেশনালিজম: যাহোক, আমাদের বিদ্যমান সমাজ ব্যবস্থার যেমন আমূল পরিবর্তন দরকার, এক কথায় দরকার একটা পূর্ণ বিপ্লবের; তেমনি প্রচলিত ধারার ইসলামী আন্দোলনেরও ব্যাপক পরিবর্তন দরকার। সাময়িক ব্যবস্থা, সংস্কার ইত্যাদি দিয়ে হবে না। কাজীর গরু (বিপ্লব তথা বৈপ্লবিক চরিত্র) শুধু কিতাবে থাকলে হবে না, গোয়ালেও থাকতে হবে। সাংগঠনিকতাবাদ (অর্গানাইজেশনালিজম, মানে সংগঠনের অবস্থানই মূলত ঠিক এবং সেটিকে যথার্থ প্রতিপন্ন করাই সংশ্লিষ্ট সবার দায়িত্ব) যেভাবে সর্বপর্যায়ে গভীরভাবে প্রোথিত হয়েছে তাতে আমি মনে করি না ইনারা ন্যাচেরালি এডাপ্ট করবেন।

ম্যা এনভাইরনমেন্ট: ভাবতে খুব কষ্ট লাগে কীভাবে ম্যাল-এনভাইরনমেন্টের (আর্থিক সুবিধা ইত্যাদি) কারণে অত্যন্ত মুখলিস ভাইয়েরা দায়িত্বশীল বনে যাওয়ার পরে ‘ডিফেন্ডারস অব ট্রাডিশানালিজম’ হয়ে দাঁড়িয়েছে! ইনারা যখন আমাদের সাথে কথা বলেন, তখন কত কিছু বলেন…! কিন্তু স্পষ্ট ভুলধারার প্রবক্তাদের বিরুদ্ধে দাঁড়ানোর প্রসঙ্গ আসলে অনেক সংস্কারবাদীকে আর খুঁজে পাওয়া যায় না। তাঁরা ‘ওয়ামা আলাইনা ইল্লাল বালাগে’র নিচে নিরাপদ আশ্রয় খোঁজেন। ‘ইনিল হুকমু ইল্লা লিল্লাহ’র উপরে কায়েম থাকার সাহস কম লোকেরই হয়। যদিও তাঁদের অনেক অনেক ব্যাক-ট্র্যাক থাকে।

কনসেপ্ট গ্রুপ: ইসলামী আন্দোলনের মধ্য হতে যারা নিজেদেরকে ‘ওয়ালতাকুম মিনকুম উম্মাতুন’ভুক্ত বলে মনে করেন, প্রাথমিক ভুল বোঝাবুঝি ও অপবাদের ঝুঁকি সত্ত্বেও তাদের প্রকাশ্যে দাঁড়াতে হবে। অন্ততপক্ষে একটা কনসেপ্ট গ্রুপ গঠন করে কাজ করে যেতে হবে। বসে থাকার সুযোগ নাই। দেখি না কী হয়, অন্যরা কী করে, সংগঠনকে বলে দেখি, আমি একটু গুছিয়ে নেই ইত্যাদির কোনো সুযোগ নাই। আল্লাহ প্রত্যেককে খলিফা নিযুক্ত করেছেন, ব্যক্তিগতভাবে। আল্লাহর কাছে জবাবদিহিতাও নিশ্চয়ই সামষ্টিকভাবে হবে না। তাই না?

প্রতি-মন্তব্য উত্তর:

() মিস-কোটেশন: আমি প্রচলিত ইসলামী আন্দোলনের ব্যাপারে কোরআন-হাদীসের মিস-কোটেশনের কথা বলেছি। হ্যাঁ, আমিও মনে করি না যে, ইসলামী আন্দোলনের দায়িত্বশীলেরা ইল-মোটিভে মিস-কোটেশন দেন। মিস-কোটেশন মানে আমি বুঝিয়েছি, কারেক্ট কোটেশন বাট রং কনটেক্সট। কোরআন-হাদীসের এ ধরনের ভুল প্রয়োগ যুগে যুগে ইসলামপন্থীরা করেছে। জাল হাদীসের এটিও একটা উৎস।

() শব্দ চয়ন: আমার থেরাপি ইত্যাদি শব্দ প্রয়োগের আপত্তির জবাবে শুধু এটুকু বলবো, সিরিয়াস আলোচনায় এগুলো অগ্রহণযোগ্য। ব্লগে যদি মন্তব্য প্রদানকারীর পক্ষে প্রদত্ত মন্তব্য সংশোধন করে পুনঃপোস্ট দেয়ার সুযোগ থাকতো তাহলে তা দিতাম।

() কনসেপ্ট ক্লারিফিকেশন: একজন ভাই ধর্মনিরপেক্ষতাবাদীদের ভোট দেয়ার জন্য দেশের মানুষের মেজর থেরাপি দরকার বলেছেন। আচ্ছা, সেক্যুলারিজম যে একটা কুফরী মতবাদ – দেশের মানুষকে এটি বোঝানোর জন্য ইসলামপন্থীরা কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে? ইসলামী দলের কোনো নেতার নাগরিকত্ব প্রতিষ্ঠার জন্য যত জীবন, শ্রম, সময় ও অর্থ ব্যয় করা হয়েছে তার অংশমাত্রও যদি মানুষের কনসেপ্ট ক্লারিফিকেশনের জন্য ব্যয় করা হতো তাহলে হয়তোবা মানুষ ইসলাম অথবা ধর্মনিরপেক্ষতাবাদ কোনো একটা গ্রহণ করতে হবে – এ রকম একটা পরিস্থিতির মুখোমুখি হতো। এবং অনেকেই ইসলামকে বেছে নিতো। যেমনটি হয়েছে ইরান বিপ্লবের সময়।

() অত্যাচারনির্যাতন: ইসলামী আন্দোলনের মূলধারার শীর্ষ নেতৃবৃন্দের বর্তমান সাফারিংসের ব্যাপারে আমার মন্তব্য কিছু ভাইয়ের খারাপ লেগেছে। উনাদের মতে, সাফারিংসকে আমি নেতাদের অন্যায় ও ভুলের প্রমাণ এবং আল্লাহর পক্ষ হতে শাস্তি হিসাবে গণ্য করছি। না, তেমনটি নয়। ন্যায়-অন্যায় এক জিনিস, আর জুলুম-অত্যাচারের শিকার হওয়া ভিন্ন জিনিস। তবে অন্যায়ভাবে শাস্তি পাওয়ার মাধ্যমে কৃত অন্যায়ের দায়মুক্তি ঘটে। এটি জানা কথা।

() কোন ইসলাম আগে কায়েম করতে হবে? কনসেপচুয়্যাল ইসলাম: আপত্তি করে প্রতিমন্তব্যকারী ভাই বলেছেন, জামায়াত বিদায় হজ্বের মাধ্যমে পূর্ণতাপ্রাপ্ত ইসলাম কায়েম করতে চায়। অবিশ্বাস্য! কারণ, যে সকল সাহাবী দাওয়াতের প্রাথমিক পর্যায়ে ইন্তেকাল করেছেন, এমনকি বদরী সাহাবীরাও সুদের মধ্যে ছিলেন, যাকাত দেননি, হিজাব মানেননি ইত্যাদি। কারণ, উনাদের জীবনকালে সেসব বিধিবিধান ইসলামে ছিল না। তাহলে উনাদের ইসলাম কি অপূর্ণ ছিল?

বাংলাদেশের সাধারণ মুসলমানদের ইসলাম-জ্ঞান হতে মক্কার কাফের-মুশরিকদের ইসলাম-জ্ঞান অনেক পারফেক্ট ছিলো। সুফীদের মাধ্যমে প্রচারিত ইসলামে দীক্ষিত এ দেশের মানুষ, ইকামতে দ্বীন ও তৎসম্পর্কিত পরিভাষাসমূহ তথা ইসলাম বোঝেই না। অথচ সর্বোচ্চ নেতারা বক্তৃতা করেন, ‘দেশের মানুষ ইসলাম চায়, শুধু নেতৃত্বের সমস্যা’!

ধর্ম হিসাবে ইসলাম হলো, যে কোনোখান হতে শুরু করেন, যা পারেন, করেন, না পারলে আল্লাহর কাছে মাফ চাওয়া ছাড়া আর কিছু করার নাই। আর দ্বীন হিসাবে ইসলাম হলো মক্কী পর্যায়, প্রাথমিক মাদানী পর্যায়, এরপর পরিপূর্ণ পর্যায় – এভাবে ধাপে ধাপে অগ্রসর হওয়া। যেখানে যা প্রযোজ্য। সে হিসাবে নাসেক-মানসুখের প্রচলিত ব্যাখ্যা হতে সরে আসতে হবে। ইতোমধ্যে আমি প্রখ্যাত ক’জন আলেমের সাথে এ বিষয়ে কথা বলেছি।

শুধুমাত্র একবার ভাবুন তো, শ্রেষ্ঠ শিক্ষক শ্রেষ্ঠ ছাত্রদের জন্য যে পর্যায়ক্রম অনুসরণ করেছিলেন কিয়ামত-সন্নিকটের বর্তমান চরম ফেৎনার যুগেও কি সেটির কোনো কার্যকারিতা আর নাই!? কেমন এবজার্ড কথা!

() ১৯৭১ পর্ব: বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ প্রসংগে প্রতিমন্তব্যকারী আমার বক্তব্যের প্রতিবাদ করেছেন। প্রসঙ্গক্রমে তিনি জাতীয়তাবাদের বিরূদ্ধে বলেছেন। আচ্ছা, জাতীয়তাবাদ কি হারাম? জাতীয়তাবাদের চরম রূপ খারাপ – নিশ্চয়ই। কিন্তু আমারটা আমার, আপনারটা আপনার। আপনার সাথে আমার লেনদেন হবে। আমার সীমানার হেফাজত আমার দায়িত্ব। এটি যদি ব্যক্তি বনাম ব্যক্তি, পরিবার বনাম পরিবার, এলাকা বনাম এলাকা হতে পারে, তাহলে রাষ্ট্র বনাম রাষ্ট্র হতে পারবে না কেন?

ঐ যে বলেছিলাম, নিজেরা ভালো করে না বুঝে অযথা ‘ইসলাম চাই’, ‘ইসলাম চাই’ বলে গলা ফাটানো! অধিকাংশ ইসলামপন্থীরা ইসলামকে এর চূড়ান্ত রূপে ও সর্বরোগবটিকা হিসাবে জনগণের কাছে তুলে ধরে। দুটোই ভুল। ইসলাম ইজ অ্যা কনসেপ্ট, নট অ্যা বান্ডেল অফ রুলস। এটি বুঝতে হবে, বোঝাতে হবে।

একবিংশ শতাব্দীর প্রেক্ষাপটে মাইক্রো ও ম্যাক্রো উভয় এপ্রোচ থেকে আমাদেরকে বুঝতে হবে। বিশেষ করে দণ্ডবিধি সম্পর্কিত বিষয়গুলো সামগ্রিক দৃষ্টিভঙ্গিতে তথা ম্যাক্রো-এপ্রোচে বুঝতে হবে। মানুষকে ভয় পাইয়ে দেয়ার একটা ‘ধর্মীয়’ প্রবণতা বরাবরই লক্ষ্য করা যায়। ইসলামী আন্দোলনের জন্য যারা কাজ করবেন তাঁদেরকে মনে রাখতে হবে দ্বীনের মূলনীতি হলো সহজ করা। অপেক্ষাকৃত কঠিনকে বাদ দেয়াটাই হলো তাকওয়া ও সুন্নত।

খেলাফত: আচ্ছা, খেলাফত মানে কি দুনিয়াজোড়া একটি একক রাষ্ট্র? কনফেডারেশন হলে, ইইউর মতো হলে বা ইউএনের মতো হলে হবে না? আচ্ছা, ইসলামী রাষ্ট্র আমেরিকার মতো অনেকগুলো ‘স্টেট’ নিয়ে হলে কি হবে না? হবে?

তাহলে, বাংলাদেশ আলাদা হওয়ার বিষয়টি মানতে কী আপত্তি ছিল? ইন্ডিয়া? এটি হলো জুজুর ভয়। এ দেশ বরাবরই স্বাধীন ছিলো। এমনকি মোঘল আমলেও এই মাটি স্বাধীন সালতানাত হিসাবে স্বাতন্ত্র্য বজায় রেখেছিলো। সেসব ইতিহাসের কথা।

গতকাল আমি আরবী ও ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের দুজন সিনিয়র মোস্ট প্রফেসরের সাথে কথা বলেছি, যারা সরাসরি একাধিকবার মাওলানা মওদূদীর সাথে সাক্ষাৎ করেছেন। তাঁরা বলেছেন, ৭১ সালে ভুল সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য সম্পূর্ণভাবে একজন শীর্ষ দায়িত্বশীলই দায়ী। এমনকি তৎকালীন আমীরও এটি চাননি। আমি প্রফেসর ড. মো: আনওয়ারুল হক খতিবীকে পাল্টা জিজ্ঞাসা করলাম, স্যার, আপনি কীভাবে জানেন? তিনি বললেন, আমাকে মাওলানা আবদুর রহীম সাহেব নিজে বলেছেন। বিষয়টির গুরুত্ব বিবেচনা করে আমি এই রেফারেন্সটি দিলাম।

নাগরিকত্ব ইস্যুর ব্যাপারে জাতীয় সংসদে জামায়াতের জনপ্রিয় এমপি ছিলেন তেমন একজন আরো সমপর্যায়ের কয়েকজন দায়িত্বশীলের উপস্থিতিতে গত তিনদিন আগের এক সন্ধ্যায় আমাদের ক’জনের সামনে বলেছেন– সংশ্লিষ্ট দায়িত্বশীলের শেষ কথা ছিলো, ‘আমাকে দায়িত্ব নিতে হলে অবশ্যই প্রকাশ্যে ঘোষণা দিতে হবে।’ যার কারণে বাধ্য হয়েই তৎকালীন সংগঠন এ ধরনের একটি অপ্রয়োজনীয় ও নিতান্তই ব্যক্তিগত ইস্যুতে জড়িয়ে পড়ে।

ঐ প্রাক্তন এমপি ও বর্তমানে উচ্চ পর্যায়ের দায়িত্বশীল আরো বললেন– তারা যখন আওয়ামী লীগের সাথে বিরোধী দলে আসীন তখন আওয়ামী লীগের অমুক অমুক নেতারা উনাদের অনুরোধ করেছেন, ৭১ ইস্যুতে যেন একটা ক্লারিফেকেশন দেয়া হয়। রাজশাহী অঞ্চলের একজন এমপি-দায়িত্বশীলসহ উনারা এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন দায়িত্বশীলদের বুঝিয়েছেন। একজন ছাড়া (যিনি সাম্প্রতিক যুদ্ধাপরাধী ইস্যুটি তৈরি করেছেন) সবাই নাকি রাজি হয়েছিলেন!

বশংবদ পরামর্শ সভা এককেন্দ্রিক সিদ্ধান্ত: প্রতিমন্তব্যকারী বলেছেন, ৭১ সালে একজন দায়িত্বশীল সব ফোরামকে কনভিন্স করতে পেরেছিলেন, এটি নাকি উনার কৃতিত্ব! হ্যাঁ, পেরেছিলেন বটে। তবে যে আহলে রায়দের উল্লেখযোগ্য অংশ বেতনভোগী, সরাসরি আর্থিকভাবে বেনিফিসিয়ারি ও মনোনীত, রাতদিন যারা আনুগত্যশীলদের দ্বারা পরিবেষ্টিত থাকেন, ‘কাজে’র চাপে যারা চিন্তাভাবনার কোনো অবসর পান না – তাঁদের পক্ষে এ ধরনের ভুল সিদ্ধান্ত নেয়াটা স্বাভাবিক নয় কি? এরমধ্যে আছে এক ধরনের তাবলীগী টাইপের পীর-মুরীদী আবহ!

বাংলাদেশের প্রচলিত ইসলামী আন্দোলন গণতন্ত্রের ধারণাকে অ্যাবিউজ করছে। এতে না ইসলাম হচ্ছে, না গণতন্ত্র হচ্ছে!

রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের বিশেষ প্রকৃতি: রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত ছাড়া সব বিষয় সিদ্ধান্ত গ্রহণকালীন প্রেক্ষাপটে মূল্যায়িত হয়। কিন্তু রাজনৈতিক বিষয়াদি মূল্যায়িত হয় পরবর্তী পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে। এটি রাজনীতর বিশেষ বৈশিষ্ট্য। তাই যদি হয়, তাহলে ৭১’র ব্যাপারে ইসলামপন্থীদের এত লুকোচুরি ও দোদূল্যমানতা কেন?

একা জামায়াতে ইসলামী স্বাধীনতার বিরোধীতা করেছে, তা তো নয়। সব ইসলামপন্থী দল, ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান পাকিস্তান ভাঙ্গার বিরোধিতা করেছে। এমনকি চীনপন্থী কমিউনিস্টরাও। কে জানত, শেখ মুজিব এসে ভারতের পরিকল্পনা ভেস্তে দিবেন? শেখ মুজিব যদি ভারতীয় বাহিনী প্রত্যাহারে ইন্দিরা গান্ধীকে বাধ্য না করতেন, ৭ দফা গোপন চুক্তি প্রত্যাখ্যান না করতেন, তাজউদ্দীনদেরকে সরকার হতে বের করে না দিতেন – তাহলে জামায়াতসহ অপরাপর ইসলামপন্থীদের ভুলটাই সঠিক বলে প্রমাণিত হতো!

রাজনৈতিক দূরদৃষ্টি: অতএব, যে কোনো রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত যখন পরবর্তী পরিস্থিতির আলোকে ভুল বা সঠিক হিসাবে মূল্যায়িত হয়, তখন নেতাদের দায়িত্ব হলো বর্তমানকে সুতীক্ষ্মভাবে পর্যবেক্ষণ করে, ভবিষ্যতকে জানা ও বোঝার চেষ্টা করে, এক কথায়, প্রজ্ঞা ও দূরদৃষ্টিকে কাজে লাগিয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া। কোনো বিষয়ে সুস্পষ্ট সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা সম্ভব না হলে মাঝামাঝি অবস্থান নেয়া। এই দৃষ্টিতে জামায়াতের নেতারা ৭১ সালে এবং ৭১ সালের পর হতে এই ইস্যুতে সবসময় সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে ব্যর্থ হয়েছে। জনশক্তির সুস্পষ্ট মতামত থাকা সত্ত্বেও। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে থাকাকালীন সময়ে প্রাপ্ত সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ৭১ ইস্যুকে চিরতরে দাফন করা যেতো।

সাইড ইস্যুতে জড়িয়ে পড়ার ভুল: ‘অর্গানাইজেশানালিস্ট’রা বলবেন, ‘কীভাবে জানলেন, এই ইস্যু শেষ হতো? বাতিলের ইস্যুর কোনো শেষ নাই।’

হ্যাঁ, বাতিলের ইস্যুর কোনো শেষ নাই। কিন্তু তাই বলে হক-বাতিলের মূল ইস্যুকে ফোকাসের বাহিরে রেখে কোনো ব্যক্তিগত, স্থানীয় ও পার্শ্বইস্যুতে সর্বশক্তি নিয়োগ করা কি ভুল পলিসি ও পণ্ডশ্রম নয়? আপনারা জানেন যে মাওলানা মওদূদী বলেছেন, চলার পথে কাঁটা ছাড়ানোর জন্য কোনো সময় ব্যয় করা যাবে না।

আমরাও বিচার চাই: কোথায় চিন্তা-গবেষণার সংগ্রাম! এর পরিবর্তে বাংলাদেশে ইসলামী আন্দোলনের মূল ইস্যু এখন শীর্ষ নেতৃবৃন্দ যুদ্ধাপরাধী নয় প্রমাণ করা! নেতাদের থিসিস ছিলো, মানুষ এসব ভুলে যাবে! অথচ, পুনরুজ্জীবিত হিব্রু ভাষার মতো ৭১ ইস্যু এখন বাংলাদেশে এমনভাবে প্রতিষ্ঠিত যে, সবাই বলে ‘আমরাও বিচার চাই’।

পরিস্থিতির চাপে পড়ে ইসলামপন্থীরাও যখন বলে ‘আমরাও বিচার চাই’ তখন ভাবি, ১৯৭১ সালে নির্মমভাবে যারা শহীদ হয়েছেন তাঁদের প্রসঙ্গ উত্থাপনেরও সাহস আমাদের নাই!! মাত্র ক’দিন আগেও নেতাদের গাড়িতে উড়ত জাতীয় পতাকা! আমি বলছি না, তাঁরা দোষ করেছেন। তবে, এটি স্পষ্ট যে, তাঁরা ব্যর্থ হয়েছেন।

রথ দেখা আর কলা বেচার ফর্মূলায় তাঁরা যেভাবে নিজেরা ও প্রায় পুরো জনশক্তিকে সংগঠন ও ব্যবসা-বাণিজ্য একসাথে করার তরীকা শিখিয়েছেন, গণতন্ত্রের যে শর্টকাট ইসলাম শিখিয়েছেন – তাতে দেখা যাচ্ছে কেবলমাত্র একজন প্রখ্যাত মুফাসসির ছাড়া আটক কারো জন্য বলতে গেলে কারো তেমন কোনো খারাপলাগা কাজ করে নাই। এই প্রখ্যাত আলেম, বাংলাদেশে যার কথা আজকের ডা. জাকির নায়েকের মতো উচ্চারিত ও আলোচিত হতো। তিনি যদি ‘সিলযুক্ত’ না হতেন, আজকে তাঁর মাধ্যমে আলেম সমাজকে মাঠে নামানো যেতো, হয়তোবা। তাঁকে চিহ্নিত করে দেয়া হয়েছে যাতে তিনি ‘বিপ্লব’ করে ফেলতে না পারেন!?

বিশেষ দ্রষ্টব্য: এই লেখাটি ‘ক্যাডার সংগঠন হিসেবে রাজনীতিতে অভিষেক: জামায়াত অধ্যয়ন-১২’ শীর্ষক পোস্টে মন্তব্য-প্রতিমন্তব্যের ধারাবাহিকতায় লেখা। তাই এই পোস্টে মন্তব্য করতে হলে যে পোস্টের মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য হিসাবে এটি লেখা হয়েছে, আপনাকে কষ্ট করে সেখানে যেতে হবে। কিছু পাঠকের পরামর্শে স্বতন্ত্র লেখা হিসাবে এটিকে পোস্ট করলাম।

মূল পোস্টের ব্যাকআপ লিংক

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক

নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে পড়াই। চাটগাইয়া। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *