ইসলাম অন্তত পাঁচ প্রকারের, আপনি কোনটিতে?

ইসলাম এক ও অভিন্ন প্রকারের। তবে সেটি হল তাত্ত্বিক ইসলাম। যা রেখে গেছেন প্রফেট মুহাম্মদ (সা), অনুসরণ করেছেন সাহাবীগণ প্রমুখ। সমাজে বা বাস্তবে ইসলাম আছে ৫ প্রকারের। বলা যায়, লোক ইসলাম ৫ ধরনের। দেখুন আপনি একমত হতে পারেন কি না:

. ইসলাম লায়াবিলিটি হিসাবে
. ইসলাম ঐতিহ্য হিসাবে
. ইসলাম পেশা হিসাবে
. ইসলাম পরিচিতি হিসাবে
. ইসলাম পছন্দ হিসাবে

. ইসলাম লায়াবিলিটি হিসাবে তাদের কাছে যারা জীবনের এক সময়ে মাদ্রাসায় পড়েছেন, বা ইসলামী সংগঠন করেছেন বা যাদের পরিবারে ইসলাম চর্চা হয় বা হতো; কিন্তু এখন তারা সর্বোতভাবে চেষ্টা করেন যাতে লোকে জানতে না পারে যে উনার একটা ইসলামী অতীত বা ব্যকগ্রাউন্ড আছে। অতীতের ইসলাম পরিচিতিকে লুকানোর জন্য কখনো কখনো এরা ইসলামপন্থীদের উপর খড়গ-হস্তও হয়ে থাকেন।

. ইসলাম ঐতিহ্য হিসাবে তাদের কাছে যারা এক সময়ে মাদ্রাসায় পড়েছেন বা পরিবারে ইসলাম চর্চা হয় বা হতো; সে হিসাবে এখনও নামাজ পড়েন, পর্দা করেন; যতটুকু সম্ভব ইসলামী অনুশাসন অনুশীলন করেন। তবে, নিজের স্বার্থকে একেবারে জলাঞ্জলি দিয়ে নয়। তাদের চিন্তা-ভাবনায় যে ইসলাম সেটি নিতান্তই ব্যক্তিগত। ইসলামের জন্য প্রয়োজনে জীবনও দিয়ে দিব– এদের মাথায় এটি কখনো আসে না। তাদের ইসলামকে বলা যায়, মুসলিম লীগ মার্কা ইসলাম।

. ইসলাম পেশা হিসাবে তাদের কাছে যারা ইসলামের চাকরি করেন। যেমন- মাদ্রাসার হুজুরেরা, পীর ও তদীয় খাদেমগণ, মসজিদের বেতনভুক্ত ইমাম সাহেবানরা, বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামী বিষয়াদির শিক্ষকগণ ও ইসলামী সংগঠনের ফুল-টাইমার দায়িত্বশীলগণ। প্রচলিত আছে, ইমামতির চাকরি না করলে অনেক হুজুর পাঁচ বেলা মসজিদেও যেতেন না। উনারা নিজেদেরকে ওয়ারাসাতুল আম্বিয়া [নবীদের উত্তরসূরী] দাবি করেন। কিন্তু মনে করেন, তাঁদের কাছে এসে ইসলাম বুঝে নেয়া জনগণের দায়িত্ব। নবীরা মানুষের কাছে যেতেন এবং পারিশ্রমিক না নেয়ার বিষয়টিকে তাঁদের বক্তব্যের পক্ষে দাবি হিসাবে লোকদের বলতেন। [বি: দ্র: শিক্ষাদানের মাধ্যমে পারিশ্রমিক গ্রহণ বৈধ হলেও দ্বীনের দাওয়াত দেয়ার জন্য কোনো প্রকারের বৈষয়িক বিনিময় গ্রহণ সম্পূর্ণ অবৈধ] এসব পেশাধারী ইসলামপন্থীরা নিজেদের জন্য রুখসত (জায়েযের সর্বনিম্ন সীমা) অবলম্বন করলেও ওয়াজ করার সময় বা হেদায়াতী বক্তব্য রাখার সময় অত্যন্ত কঠোরভাবে (নাকি নির্লজ্জভাবে?) আযীমতের (সর্বোচ্চ মান) বয়ান করেন।

. ইসলাম পরিচিতি হিসাবে তাদের কাছে যারা মূলত অমুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশে থাকেন। ইসলাম তাঁদের সোশ্যাল আইডেন্টিটি। এরা প্রায়শই এপলোজেটিক হয়ে থাকেন। পরবর্তীকালে এরা ইসলাম পছন্দ ক্যাটাগরিতে উন্নীত হন – এমন নজির বিদ্যমান।

. ইসলাম পছন্দ হিসাবে –  আছেন তারা যারা ইসলামকে জীবনের সর্বক্ষেত্রে একমাত্র আদর্শ হিসাবে মেনে চলেন। এরা ইসলাম বুঝেন, যথাসম্ভব মানেন। এই দলের লোক আবার তিন ধরনের। চরমপন্থী, নন-অফেনসিভ চরমপন্থী ও মধ্যপন্থী।

. চরমপন্থী ইসলাম তাদের চয়েস অথচ চরমপন্থী হচ্ছেন তারা যারা বোমা মেরে প্রচলিত আদালতের বিচারকদের হত্যা করতে চান। এজন্য যে, এসব বিচারক আল্লাহর আইন অনুযায়ী ফয়সালা করেন না, যেখানে আল্লাহর বাণী হল– যারা ইসলামের বিধান ব্যতিরেকে বিচারফয়সালা করে তারা কাফির…. আক্বীদাগত দিক থেকে এরা ইসলাম বুঝলেও বিদ্যমান সমাজে ইসলামের বাস্তবায়নের ব্যাপারে এরা অত্যন্ত দুর্বল জ্ঞান রাখেন। এরা যে কোনো ধরনের বুদ্ধিবৃত্তিক ও সুকুমারবৃত্তি চর্চাকে নেতিবাচক দৃষ্টিতে দেখেন।

. আমলবাদী এরা কখনো নন-অফেনসিভ এক্সট্রিমিস্টও হয়ে থাকেন। ইসলামের শুধুমাত্র লোকপ্রিয় (মূলত ধর্মীয়) দিকগুলো, যেমন স্পিরিচুয়ালিটি ইত্যাদি নিয়ে এরা থাকেন। এরা ইসলামিক পিউরিটানিজমে ভোগেন। ইসলাম পছন্দ চরমপন্থী ও মধ্যপন্থীদেরকে এরা সরাসরি অন্যতম বাতিল মনে করেন। এরাও বুদ্ধিবৃত্তিক চর্চাকে অনুৎসাহিত করেন।

. মধ্যপন্থী ইসলাম পছন্দ দলের মধ্যকার মধ্যপন্থী হচ্ছেন তারা যারা ইসলামের সাথে সাংঘর্ষিক সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় বিধানাবলীকে সামাজিক প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন করে ইসলামের বিধানাবলী সমাজে প্রতিষ্ঠিত করতে চান। উনারা ইসলামী আন্দোলনের লোক। নারীদের ব্যাপারে এরা উদার মনোভাবাপন্ন, বুদ্ধিবৃত্তিক ও সুকুমার চর্চাকে এরা জরুরি মনে করেন। সোশ্যাল ম্যাচুরিটি– এদের যে কোনো পলিসির মাপকাঠি হিসাবে কাজ করে। সমাজের সকল স্তর হতে লোকজন নিয়ে এই ক্যাটাগরি। আসুন এবার আত্মপর্যালোচনা করে দেখি আমি/আপনি কোন‌্ দলে?

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক

নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে পড়াই। চাটগাইয়া। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *