বিবিধ

সময়ের আপেক্ষিকতা: ইসলাম বনাম বিজ্ঞান

দৃশ্যত খামখেয়ালিপূর্ণভাবে আমি এইটা ওইটা বিভিন্ন কিছু করে থাকি। আমার লেখা ও পোস্টগুলোতে গড়পড়তা এক-দেড়শ লাইক পড়ে। সেই হিসাবে আমি নিতান্তই গোবেচারা একজন ব্লগ-লেখক। এত কম রেসপন্স দেখে মাঝে মাঝে হতাশ হই। এর বিপরীতে মাঝে মাঝে এমন হয় যে, তেমন সমঝদার-ওজনদার কেউ বলে, আপনার লেখাটা পড়েছি। অথবা, আপনার ভিডিও বক্তব্যটা মনোযোগ দিয়ে শুনেছি। তখন খুব ভালো লাগে। একটু আগে সময়ের…

বাকিটুকু পড়ুন

ডায়েরি

লুঙ্গি

প্রায় ২০ বছর পরে আমার বাসায় লুঙ্গির আগমন। বড় মেয়ে মাহজুবাহ যখন ছোট ছিল তখন থেকে প্যান্ট পড়ার অভ্যাস গড়ে উঠেছে। এতদিন বাসায় ছিল না কোনো লুঙ্গি। হঠাৎ করে গতকাল সৌরভ ও তার বড় বইন ফাইজা যোগাযোগ করে বললো, তারা আগামীকাল আমার সাথে দেখা করতে আসবে। ও মা! আসার পরে জানা গেল, তাদের আসার মূল কারণ হলো আমাকে একটা লুঙ্গি…

বাকিটুকু পড়ুন

কবিতা

মানুষ কিংবা জীবিত-জড়

“a promise of blood, all the drops. a promise of life, all the moments. এ এক অঙ্গীকার প্রতি ফোঁটা রক্তের। এ এক প্রতিজ্ঞা পুরো জীবনের, প্রতিটা মুহূর্তের।” যার জীবনে নাই এমন কোনো অঙ্গীকার, নাই যার তেমন কোনো প্রতিজ্ঞা, মানুষের মর্যাদা হতে অলরেডি সে অবনমিত। তার ভালো কিংবা মন্দ হওয়ার প্রশ্নটা পরের। যিনি এগিয়ে চলেছেন, যার আছে নিজস্ব মত, স্বকীয় ভাবনায়…

বাকিটুকু পড়ুন

কবিতা

সমালোচনার মিষ্টতা কিংবা প্রশংসার জ্বালা

প্রশংসা শুনতে শুনতে আমি রীতিমতো ক্লান্ত, খানিকটা বিরক্তও বটে। মাঝে মাঝে তাই যখন শুনি অযাচিত নির্দয় সমালোচনা, তখন এসি’র ভেতর থেকে বের হয়ে ‘মিষ্টি’ রোদে হাঁটার মতো, বেশ ভালো লাগে। অতএব, সমালোচনাও মধুর বটে, যদি না তা হয় একতরফা, অথবা যদি তা থামে কিছুক্ষণ পরে। ফেসবুক লিংক

বাকিটুকু পড়ুন

বিবিধ

লেখকের দায় ও পাঠকের কর্তব্য

‌একটা লেখার মূল বিষয়টা কী, সেটি যদি স্পষ্ট না হয় তাহলে বলতে হবে সংশ্লিষ্ট লেখাটি ব‍্যর্থ, একটা অর্থহীন ভাষাগত পণ্ডিতিমাত্র। সেজন্য লেখার শুরুর দিকে মেইন পয়েন্টটা কী, সেটা নিয়ে clear cut ধারনা দিয়ে দিতে হবে। আমি যেটা করি সেটা হলো, লেখার শুরুতেই মূল কথাটা বলে দিই। তো, লেখার মূল কথাটা যদি শুরুতেই বলে দেয়া না হয় তাহলে অন্তত পক্ষে উপসংহারে…

বাকিটুকু পড়ুন

ডায়েরি

যখন থামবে কোলাহল, ঘুমে নিঝুম চারিদিক…

মামুনের কবর জেয়ারত করার জন্য গিয়েছিলাম। আজ বিকালে। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ‌একপাশে একটা পাহাড় অর্ধেক কেটে কবরস্থান বানানো হয়েছে। সেটার গোড়ায় মামুনকে কবর দেয়া হয়েছে। জানতাম। কারণ, দাফনের সময়ে আমি ছিলাম। পরে কবরটার লোকেশন ভুলে গেছি। তাই, মামুনের ঘনিষ্ট ছিলো, ওর সমবয়সী উত্তর ক্যাম্পাসের একজন কর্মচারীকে অনুরোধ করেছি মামুনের কবরটা চিনিয়ে দিতে। আমার ফোন পেয়েই মোহাম্মদ আলী কেন্দ্রীয়…

বাকিটুকু পড়ুন

জীবন ও সমাজ

সুষম সমাজ ও রাষ্ট্র গঠনে নৈতিকতা, স্বার্থ ও প্রবৃত্তির মধ্যে সমন্বয়ের অপরিহার্যতা

১. এথিকস: মানুষ তার স্বার্থ বা ইন্টারেস্ট দ্বারা চালিত হয়। চাহিদা, স্বার্থ বা ইন্টারেস্টের মধ্যে যখন সংঘাত হয় তখন মানুষ স্বীয় ইন্টারেস্টগুলোর মধ্যে কোনোটাকে কোনোটার ওপর প্রায়োরিটি দেয়। সম্ভাব্য বিকল্পগুলোর মধ্য থেকে গ্রহণযোগ্যতার সিরিয়াল তৈরি করা হলো নৈতিকতা। তৈরিকৃত প্রায়োরিটি লিস্টের এক নম্বর বিষয় বা কাজটা সম্পন্ন করা বা করার চেষ্টা করা হবে স্বভাবতই নৈতিকতার এক নম্বর দাবি। একটা প্রচলিত…

বাকিটুকু পড়ুন

সমসাময়িক

মতাদর্শগত দিক থেকে রাজনীতির ছক অনুযায়ী আজকের বাংলাদেশে প্রধান রাজনৈতিক দলসমূহের, বিশেষ করে জামায়াতে ইসলামীর রাজনৈতিক কৌশলের মূল্যায়ন

আগের নোটে উল্লেখিত রাজনীতির ছকে যদি আমরা সমকালীন বাংলাদেশের রাজনীতিকে বিবেচনা করি তাহলে তা এই স্কেলে প্রদর্শিত প্যাটার্ন হিসাবে হাজির হবে। এখানে ইসলামী দলগুলোকে (নেতৃস্থানীয় হওয়ার কারণে জামায়াতে ইসলামীকে দিয়ে এদেরকে বুঝানো হয়েছে) আমি চরম ডান শক্তি হিসাবে চিহ্নিত করেছি, যাকে ইংরেজীতে ফা-র অথবা র‍্যাডিকেল রাইটিস্ট ফোর্স হিসাবেও বলা যায়। উল্লেখ্য, আদর্শবাদ নিয়ে রাজনীতির ময়দানে হাজির থাকা অন্যান্য ‘খেলোয়াড়দের’ অবস্থানের…

বাকিটুকু পড়ুন

সমসাময়িক

মতাদর্শগত দিক থেকে রাজনীতির ছক, কর্মকৌশল, মডেল বা ফর্মূলা

[আপনি যেই দলই করেন না কেন, অথবা হোন আপনি দল-নিরপেক্ষ, তাতে কিছু আসে যায় না। রাজনীতি সম্বন্ধে যদি জানতে চান তাহলে আপনাকে পলিটিক্সের এই ইউনিভার্সাল বা common strategy সম্পর্কে জানতে হবে। এমনকি, আপনি যদি ‘ফিলোসফারের উর্বর চিন্তা’ বলে ‘ঝামেলা’ মনে করে রাজনীতির এই কমন ব্লু-প্রিন্টটাকে এক্সপ্লোর না-ও করেন, অসুবিধা নাই। আমি নিশ্চিত, এই ফর্মূলাকে মেনে নিয়েই আপনি রাজনীতি সচেতন নাগরিক,…

বাকিটুকু পড়ুন

ইসলামী আন্দোলন

আপনি সাংগঠনিক সংস্কারের পক্ষে? আপনার জন্য পরামর্শ

৯৬-২০০১ সময়কালে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে আমরা একসাথে কাজ করেছি। চরম দুঃসময়ে। একজন ছাত্র অংগনের নেতা। ছিলেন উত্তর ক্যাম্পাসে। আরেকজন শিক্ষক নেতা। থাকেন দক্ষিণ ক্যাম্পাসে। পরবর্তীতে তিনি ওই ছাত্র সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সভাপতি হয়েছিলেন। তিনি ছিলেন নেতৃত্বের গুণসম্পন্ন। সাহসী, মিশুক, সংস্কৃতিমনা ও মেধাবী। স্বভাব, রুচি ও দৃষ্টিভঙ্গিগত সাযুজ্যের কারণে আমাদের মধ্যে বিশেষ সখ্যতার সম্পর্ক গড়ে উঠেছিলো। তিনি এখন ‘রিফর্ম ফ্রম উইদিন’-এ বিশ্বাসী। আমি…

বাকিটুকু পড়ুন