ধর্ম, সংস্কৃতি, মননশীলতা ও ইসলাম

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মদিন উপলক্ষে টিভিতে প্রিয় নজরুল সংগীত শুনতে শুনতে ভাবছিলাম, আমাদের প্রিয় ইসলামী দায়িত্বশীলদের বৃহাদাংশই এসব ‘গান-বাজনার’ ধার ধারেন না! মননশীলতা নামক বিষয়টি তাদের ডিকশনারিতে অনুপস্থিত। কারণ, তারা কখনো বাদ্যবিহীন আবৃত্তি উৎসবে মেতেছেন, এমনটাও দেখিনি। বিশ্বসভ্যতার ইতিহাস নিয়ে তারা কখনো পড়েছেন, দেখিনি। অধ্যয়ন ও অনুসন্ধানের দৃষ্টিভঙ্গিতে মার্ক্স নিয়ে তারা কখনো পড়াশোনা করেছেন, শুনিনি। অথচ, মার্ক্স প্রস্তাবিত সর্বহারাদের বিপ্লবকে ঠেকানো বা অংকুরে বিনষ্ট করার জন্যই বিংশ শতাব্দীতে এই কল্যাণ রাষ্ট্রের বিষয়টাকে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। জানি না, প্রিয় ইসলামী নেতৃবৃন্দ এই খবরটুকু রাখেন কি না। অন্যদের ভালো যে কোনো কিছুর ব্যাপারে ‘আমাদের ইসলামেও আছে বা ছিলো’ – এটুকুতেই উনাদের আত্মতৃপ্তি!

উনাদের কাছে ইসলাম মূলত রাজনীতি; যার আছে ধর্মীয়, অর্থনৈতিক, সামরিক, আধ্যাত্মিক ও সামাজিক দিক বা আসপেক্ট। অথচ ইসলাম যতটা রাজনৈতিক ততটাই ধর্মীয়, যতটা ধর্মীয় ততটাই রাজনৈতিক, যতটা রাজনৈতিক, সমান্তরালে ততটাই সামাজিক। ইসলাম যতটা সামরিক তারচেয়ে কম আধ্যাত্মিক – এমন নয়। ইসলামে মানবীয় সকল মৌলিক বিষয়াদিই সমভাবে গুরুত্বপূর্ণ।

মননশীলতাশূন্য এসব রোবটিক ধর্মীয় বা রাজনৈতিক ইসলাম চর্চা বিশেষ করে পলিমাটির এই ভাটি অঞ্চলের গণমানসে কখনো এককভাবে স্থান লাভ করতে পারেনি, পারবেও না। ধর্মীয় কর্তৃপক্ষের স্বীকৃতি না পাওয়ায় এখানকার সংস্কৃতিচর্চা ও মননশীলতা বিজাতীয় পৌত্তলিক ও বস্তুবাদী সংস্কৃতিকে ক্ষেত্রবিশেষে গ্রহণ করেছে। এতে জনগণের যতটা ‘দোষ’ তারচেয়েও বেশি ইসলামিস্টদের ব্যর্থতা।

সংস্কৃতি ও মননশীলতার ব্যাপারে ধর্মের চেয়েও মানবিকতাকেই বেশি গুরুত্ব দিতে হবে। ধর্ম ও (বিনোদন) সংস্কৃতির এই বিরোধ অনিবার্য। তাই ধর্মের জায়গায় ধর্মকে রাখতে হবে। সংস্কৃতির জায়গায় সংস্কৃতি। অর্থনীতির জায়গায় অর্থনীতি। সামরিকতার বিষয়ে সামরিকতাই বিবেচ্য হওয়া উচিত। আধ্যত্মিকতার জায়গায় আধ্যাত্মিকতা। এসবই ইসলামের বৃহত্তর সীমার আওতাভুক্ত। একটি অপরটির বা সংশ্লিষ্ট অন্যগুলোর পরিপূরক, একাত্ম বা আইডেন্টিক্যাল নয়।

নির্বাচিত মন্তব্য-প্রতিমন্তব্য

আসিফ রহমান: ‘ধর্ম’ এবং ‘দেশ’ এই শব্দ দুটোর মধ্যে কোনো বিরোধ আছে কি? এই ব্যাপারে জানালে কৃতজ্ঞ হতাম।

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক: যাহা কিছুই স্বাভাবিক ও প্রাকৃতিকভাবে মানুষের জন্য ভালো ও কল্যাণকর তাহাই ইসলাম, তাহাই ইসলামসম্মত বা ইসলামিক। দেশ ছাড়া কি মানুষ বাঁচে? দেশ আর ধর্ম সাংঘর্ষিক কিনা – এই প্রশ্নটা যে উঠছে, সেটি ইসলামী কর্তৃপক্ষের জন্য অতীব লজ্জাজনক। দেশপ্রেম ঈমানের দাবি – এটি হাদীস না হলেও কথাটা সত্যি। হাদীস জাল হলেও কখনো কখনো কথা অতীব সত্য হতে পারে।

আসিফ রহমান: উত্তর পেয়েছি স্যার। কিন্তু আমাদের বাস্তব অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় যেন এরা পরস্পর সাংঘর্ষিক। ধন্যবাদ।

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক: এসব ‘ধর্মীয় ইসলামের’ কনসেপ্টের জন্য, ইসলামের নয়। ইসলাম দেশ ও জাতীয়তাবাদের বিরোধী হবার কোনো প্রমাণ নাই, থাকতে পারে না। যদিও এটি জাত্যাভিমান ও সাম্প্রদায়িকতার বিরোধী।

Mohammed Mostafa Ripon: Yes, sir this is fake hadith. can you please let us why its shame for islamist? who is Islamic authority?

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক: আলেম সমাজ বলতে যাদের বোঝানো হয় তাদেরকে আমরা গতানুগতিক অর্থে ইসলামিক অথরিটি গণ্য করতে পারি। নানাবিধ কারণে আলেম সমাজের পক্ষ হতে স্বদেশ ও স্বজাতির প্রতি ভালোবাসাকে সন্দেহের দৃষ্টিতে দেখা হয়েছে। তারা জাতীয়তাবাদকে স্বজাতির প্রতি ভালোবাসা ও দায়বদ্ধতা অর্থে না বুঝে জাত্যাভিমান, স্বজনপ্রীতি ও সাম্প্রদায়িকতা অর্থে বুঝেছেন। এটি ফিলোসফি অফ ইন্টারপ্রিট্যাশান বা হারমেনিটিক্সের দৃষ্টিতে সিম্পলি ক্যাটাগরি মিস্টেক। বলতে পারেন, এক ধরনের নির্দোষ ভুল বুঝাবুঝি।

Shaikh Muzammel Al-hoque: Ooh! many things to discuss! Mr. Hoque you want to make Islam by your upper chamber’s computer whereas Islam is not about what you think, it is divine revelation. Alem-ulema are the main doctors for the diseases, how can they produce the disease? Gan-Bajna and unlimited sports are of vital reasons that keep a person away from worshiping Allah as Allah declared, which creates lots of miscreants. What Allah makes haram you want to see them halal? Shame for a Muslim having prophet’s name and makes his opinion over divine guide!

Sazzadur Rahman: বিনোদনের ক্ষেত্রে ইসলামের দৃষ্টিভঙ্গি নিয়ে আরো স্পষ্টভাবে আলোচনা হওয়া উচিত। আমার কাছে মনে হয় তরুণ প্রজন্ম ইসলাম থেকে দূরে সরে যাওয়ার অন্যতম কারণ হলো– তাদের ধারণা ইসলাম তাদের বিনোদনের ক্ষেত্র সংকুচিত করবে। এমনকি ইসলামী আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত অনেকেও এই বিষয়ে সঠিক ধারণা রাখেন না।

Shaikh Muzammel Al-hoque: There is binodon in Islam but within the limit if that does not cause breaching of divine obligation in anything. Once the young get real understanding of Islam they will not go away from Islam. It is not our business to keep them inside by easing what does not afford to be ease. Our duty is to promote Islam as it is, who accept he is fortunate, who does not is under the disposal of Allah swt.

Shahidul Hoque: আমার ধারণা, মানবীয় সকল মৌলিক বিভাগের মধ্যে একমাত্র সংস্কৃতির ব্যাপারেই ইসলামের অবস্থানকে অনেকটা সেন্সেটিভ ইস্যু হিসেবে দেখা হয়। সাধারণ মানুষ যেমন সংস্কৃতির মানবিক বিষয়গুলোকে উপেক্ষা করতে পারে না, তেমনি ইসলামের সীমারেখার সংশয়যুক্ত বিষয়গুলোতে হালাল-হারামের সীমারেখা নিয়েও নিশ্চিত হতে পারে না। তাই মাঝামাঝি অবস্থানে থাকতেই পছন্দ করে।

আমাকে যদি কোনো চিত্রকলার সামনে এনে দাঁড় করানো হয়, বেশিরভাগ সম্ভাবনা হচ্ছে, কিছু হিজিবিজি রঙের কারুকাজ দেখবো। এর বেশি কিছু হয়ত বুঝবোও না। আমি যদি চিত্রকলা বিষয়ে আদেশ-নিষেধের সীমারেখা টানতে চাই তাহলে তা কতটুকুইবা যৌক্তিক এবং ন্যায় হবে?

Mohammed Mostafa Ripon: I think this is one sided that Islamic authority means Moulana. We are mixing culture & religion that why create that type of conflict. We need to divide culture & religion. In religion everything is culture but in culture everything is not religion.

Shaikh Muzammel Al-hoque: Yes, right Islamic scholars are your reference if you are a Muslim. Our prophet s. said: things are three; one, that is crystal clear as lawful you do it, two: the one which is clearly unlawful you avoid it, and three: the one that is not clear or doubtful you refer it to the scholarly Islamic Ulema. Why we take things from Nazrul and Rabindranath, do we have anything lack in Islam? So, doing gradually takes us out of Islam, may Allah help who does not understand.

Sarwar Kamal: Some misleading comments annoyed me not because those hurt me personally, only because those comments were not put on the line of this note. Someone misunderstood the word ‘Gaan’ as well, at least in Bengali cultural context. In our part of the world, Gaan was not originated as a form of entertainment rather a method of epistemic enterprise to understand man-life-real etc. It was the mode of construction of belief systems, knowledge and above all a representation of ideologies that developed in different ages. Now, to what extent Islam permit ‘Gaan’ is a question that should be answered in a comparative cultural discourse than finding the answer in literal meaning of Quranic lexicon. Lastly, the Quran should not be looked upon as a no-fly zone for modern science, philosophy and interpretations.

Shaikh Muzammel Al-hoque: Sarwar Kamal, I want to add that science, tech, philosophy whatsoever you do or practice you are not allowed to breach any red signals of Islam, and that’s it. For example, if you perform song what you should care for is: you don’t words support shirk, bidah or promote rotten culture, do not be in mix of genders, do not miss out prayers you and your listeners, and also do not encourage people for this act and business, because according to the Quran: all permissible things that makes some addicted or make him miss out his duties towards Allah are called mayser and mayser is haram. Look at football, cricket and star singers, are not they missing prayers, are not they saying bad words and phrases, are not they spending all of their time and energy for that hobby? as if they are created for that hobby, actually they are not!

Shahadat Mahmud Siddiquee: আমি ছোট মানুষ! তবু বলতে হচ্ছে– শেষের লাইনগুলোতে সেক্যুলারিজমের সুস্পষ্ট গন্ধ আছে। ইসলাম (দ্বীন-ই-ফিতরাত) প্রশ্নে ধর্ম ও মানবিকতাকে কোনো অবস্থায় আলাদা করে দেখা যাবে না। ‘আধ্যত্মিকতার জায়গায় আধ্যাত্মিকতা’ না রেখে জীবনের সর্বত্র চাষ করতে পারলে ‘ধর্ম ও (বিনোদন) সংস্কৃতির এই বিরোধ অনিবার্য’ না হয়ে পরিত্যাজ্যই হয়ে উঠবে। আর মনে রাখতে হবে– ‘প্রিয় নজরুল সংগীতে’ অনেক নজরুলবিরোধী সংগীতও আছে! নজরুল অবশ্য তা খুব ভালোভাবেই মনে রাখতেন!

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক: সবকিছুই একজন মুসলমান ইবাদত হিসাবেই করেন। ঘুম আর প্রাকৃতিক কাজের মতো বিষয়েও সওয়াব। তৎসত্ত্বেও ব্যবহারিক বা সামাজিক কর্মকাণ্ড বুঝানোর জন্য, বিশেষ করে বিদয়াতকে চিহ্নিত করার জন্য মুয়ামালাত নামক একটা ক্যাটাগরি করা হয়। তেমনি আধ্যাত্মিকতার চেতনা সর্বদা থাকা সত্ত্বেও আধ্যাত্মিকতার একটা (বাহ্যত) আলাদা পরিচয়, প্রকরণ ও স্থান ইসলামে রয়েছে। ক এবং খ–এর সম্পর্ক অনিবার্য হওয়া সত্ত্বেও এতদুভয় এক বা আইডেন্টিক্যাল নয়। যেমন বাঁচার জন্য হৃৎপিণ্ড এবং ফুসফুস উভয়েরই দরকার। তাই বলে এ দুটো এক জিনিস নয়। বুঝেছেন আশা করি। সেক্যুলারিজমের কিছু অপরিহার্য বৈশিষ্ট্য আছে যা ইতিবাচক তাৎপর্য বহন করে। মানব রচিত বিভিন্ন মানবকল্যাণমূলক মতবাদের কিছু সদর্থক দিক আছে, কিছু কিছু মৌলিক গলদও আছে। সেজন্য সেগুলোর বিষয়ে সঠিক দৃষ্টিভঙ্গি কী হওয়া উচিত, তা নিয়ে আলাদাভাবে লেখার চিন্তা করছি। তাই, সেক্যুলারিজম নিয়ে নতুন কোনো প্রশ্ন তুলবেন না আশা করি। ভাল থাকুন। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের আশেপাশে থাকলে, আসুন, একদিন কথা বলি।

Shahadat Mahmud Siddiquee: ধন্যবাদ স্যার! আল্লাহ চাহেন তো খুব শীঘ্রই আপনার সাথে দেখা হবে। তবু একটু বলে রাখি– সালাত ও সাওমের কিংবা হাজ্জের সাথে জাকাতের সম্পর্ককে আপনি উক্ত রুপে (ক এবং খ কিংবা হৃৎপিণ্ড এবং ফুসফুস) অ্যানালজি করতে পারেন। কিন্তু আধ্যত্মিকতা যেহেতু আত্মা সংশ্লিষ্ট, আর আত্মা যেহেতু ‘ক এবং খ’ কিংবা ‘হৃৎপিণ্ড এবং ফুসফুস’ টাইপ কোনো দৃশ্যমান ব্যাপার নয়; সুতরাং, ‘আধ্যত্মিকতার জায়গায় আধ্যাত্মিকতা’ রাখা অসম্ভব। এর আলাদা কোনো রূপও নেই। ‘প্রিয় নজরুল সংগীত’ শোনার সময় এটি যেমন ‘ভোগাবে’ আপনাকে, একইভাবে পালাতে দেবে না সংগ্রামের ময়দান থেকেও! আর ‘আধ্যাত্মিকতার একটা (বাহ্যত) আলাদা পরিচয়, প্রকরণ ও স্থান ইসলামে’ কারা তৈরি করতে চেয়েছে এবং চাচ্ছে আপনি ভালো করেই জানেন। ওদের এসব পোশাক-আশাক, ভাব-সাব অথবা সংগ্রামবিমুখ তাহাজ্জুতের সবক ইসলামের বিপরীতে উমাইয়া ইসলামকেই যুগে যুগে কায়েম করেছে এবং রেখেছে! যাই হোক আপনার লিখাটির প্রতীক্ষায় রইলাম…।

Ibrahim Hossain: Dear Bro, while it is good to see you trying to do something in different means, your way of doing things is not always correct.

Many of your admirers get hurt when they see you doing something silly. As a writer you should consider your audience.

I think the present writing is completely wayward. I started reading the article by being allured by the title. I expected a serious kind of writing from the title. I became utterly disappointed as I went through the writing.

The first para sounded completely irrelevant. You unnecessarily target a group of people who in a way think like you.

The negligence about cultural activities among the Islamists all over the world is evident. But they are not completely devoid of the agenda. Islamist cultural groups all over the world are rising slowly but surely.

I can see many of your acquaintances no longer read your post, because they think you have become too much predictable.

I’m sorry that I made the above comments in public. I also know that you don’t believe in secrecy. Though in real life whether we like or not we’ve to do many things in private.

If you still believe you’re doing the right thing you can continue doing. If you’re really interested in some serious discussion you’ve to consider your audience.

লেখাটির ফেসবুক লিংক

Leave a Reply