শিরোনামহীন অনুভব

সম্পর্ক যত নিকটতর, সম্পর্কের দায় তত ব‍্যাপকতর, তিক্ততা তৈরির আশংকাও তত বেশি।

যত দূরের তত ভালো। যতটা কাছের সম্পর্ক ততটাই তা ঝুঁকিপূর্ণ।

সব সম্পর্কই মূলত দেয়া-নেয়ার ব‍্যাপার। নিঃস্বার্থ সম্পর্ক বলে কিছু নাই।

ভালোবাসার সম্পর্কও কিছু না কিছু দেয়া-নেয়ার ব‍্যাপার।

অথচ,

নিকটতর সম্পর্কের ক্ষেত্রে মানুষ কেমন যেন নির্লিপ্ত হয়ে পড়ে।

সামাজিক সম্পর্ক রক্ষায় মানুষ যতটা যত্মবান হয় ব‍্যক্তিগত সম্পর্কের দায় মিটানোর ব‍্যাপারে ততটা সিরিয়াস বা কর্তব্যনিষ্ঠ হয় না।

কারো সমর্থক বা ভক্ত হওয়া যতটা সহজ ও মধুরতর, সেই ব‍্যক্তির বাস্তব অনুসারী বা সহযোগী হওয়া ততটা সুখময় ও সুন্দর হয় না।

কেননা,

দ্বিতীয় ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট দায়দায়িত্ব থাকে। একই কারণে,

প্রেম করা সহজ, সংসার করা কঠিন।

মাঝে মাঝে, নৈকট্য সম্পর্ককে ভঙ্গুর (vulnerable) করে তোলে। ব‍্যাপারটা কেমন যেন প‍্যারাডক্সিক‍্যাল।

স্মৃতিচারণ বা রোমান্টিক কল্পনার মাদকতা, বাস্তব সাক্ষাৎ-সম্পর্কে, অনেক সময়ে ক্রমে ফিকে হয়ে যায়।

অযত্ম আর একতরফা অতি প্রত‍্যাশার চাপে এক সময়ের সুস্থ সম্পর্কের নিরব মৃত্যু ঘটে।

নিহত সম্পর্কের বোঝা বয়ে নিত‍্য বসবাসের দুর্ভাগ্য, অতিবড় কষ্টের।

উপায় কী? এমন পরিস্থিতির যারা সম্মুখীন?

হ‍্যাঁ, তারা কথাবার্তা বলবে মনখুলে। সমস্যা যে হয়েছে, তা বুঝবে। মেনে চলবে সমাজস্বীকৃত সম্পর্কসীমাগুলোকে।

নিরপেক্ষ (?) মিডিয়া মোগল প্রথম আলো প্রযোজিত ‘কাছে আসার গল্পগুলো’র পরিণতি লাভ করে দুঃসহ তিক্ততায়।

দায়-দায়িত্বহীন বন্ধুত্বের আবেগ সহসাই ফুরায়।

কথাটা সত‍্য, sometimes in relation, the distant the better; the closer the bitter.

অতিকাছের একজন
হতে পারতো যে,
সে থাকে বহুদূর।
মন্দ কী?

সাক্ষাতে আহত অনুভবের চেয়ে
দূরে থাকাই তো ভালো।
তাতে করে অন্তত
আশাটা বেঁচে থাকে।

নিহত সম্পর্কের চেয়ে
সুখস্বপ্নটা সজীব থাকাই তো ভালো

মাঝে মাঝে
মিলনের চেয়ে বিরহ মধুরতর
পাওয়ার চেয়ে
না পাওয়ার সুখ মধুময় বেশি।

হরমোনসমৃদ্ধ নবীনেরা যদিও
এটা বুঝে উঠার উঠতে পারার মতো
পর্যাপ্ত অবকাশ পায় না।

কথায় বলে,
অভিজ্ঞতার বিকল্প নাই।

পোস্টটির ফেসবুক লিংক

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক

নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে পড়াই। চাটগাইয়া। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থাকি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *