সত্যকে জানার পদ্ধতি

বড় বড় লোকেরা ছোট ছোট বিষয়ে বড় বড় ভুল করে।

রাশভারি সব কথা বা উচ্চমার্গের সব তত্ত্বের পরিবর্তে ছোট ছোট সাধারণ নৈতিক শিক্ষার ভিত্তিতে আমরা জীবনের বড় বড় সব সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারি।

তাই,

‘সব বাতিল মত-পথ-তত্ত্বকে’ খণ্ডন করে সত্য প্রতিষ্ঠার চেষ্টা, ভুল। কী কী মিথ্যা, তা জানার পিছনে ছোটা হলো সংশয়বাদী প্রবণতা।

অন্ধকারের মাঝে আলোর মতো দীপ্ত সত্য নিজ গুণে প্রতিষ্ঠিত। আত্মসত্তা, জগত ও জীবনের অখণ্ড সত্যকে জানা ও বুঝতে পারার জন্য চারপাশের​ নৈমিত্তিক সাধারণ অভিজ্ঞতাগুলোই যথেষ্ট।

ফেসবুকে প্রদত্ত মন্তব্য

Mohammad Siddiq: বড় বড় তত্ত্বের গোড়া একই, ছোট উপসংহার।

গ্রাম্য অনেক প্রবাদ আছে যার গভীরতা ভাবলে আমি অবাক হয়ে যাই! কী দর্শনবোধ অল্প শিক্ষিত মানুষের মধ্যে লোকায়িত। এরাই আবহমান কালের শিকড়!

লেখাটির ফেসবুক লিংক

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক

নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিলোসফি পড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করি। গ্রামের বাড়ি ফটিকছড়ি, চট্টগ্রাম। থাকি চবি ক্যাম্পাসে। নিশিদিন এক অনাবিল ভবিষ্যতের স্বপ্ন দেখি। তাই, স্বপ্নের ফেরি করে বেড়াই। বর্তমানে বেঁচে থাকা এক ভবিষ্যতের নাগরিক।

“সত্যকে জানার পদ্ধতি” শীষক র্পোস্টে একটি মন্তব্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *