কেন আমি ইসলাম নিয়ে বুদ্ধিবৃত্তিক তর্কে এনগেইজ হই না

একজন পরাজিতের বিজয় ভাবনা‘ শিরোনামে সম্প্রতি আমি একটা নিবন্ধ লিখেছি। আমাদের মতো গোবেচারা-ছাপোষা-ননসেলিব্রেটিদের সাধারণ লেখাজোকার তুলনায় এটি অনেক বেশিসংখ্যক পাঠক পড়েছেন, লাইক-কমেন্ট-শেয়ার করেছেন। এরই মধ্যে এক শুভানুধ্যায়ী আমার এই ‘বৈপ্লবিক’ লেখাটার ক্রিটিক করে “মোহাম্মদ মোজাম্মেল হকের ‘পরাজিতের বিজয় ভাবনা’ পাঠ ও পর্যালোচনা” শিরোনামে একটা নোট লিখেছেন। উনি ও কয়েকজন পাঠক চাইতেছিলেন, আমি যাতে উত্থাপিত আপত্তিগুলো খণ্ডন করার জন্য সেখানে আলোচনাতে এনগেইজ হই।

আমি তা করি নাই। বরং বলেছি, কেন আমি এনগেইজ হতে চাচ্ছি না তা নিয়ে আলাদা একটা পোস্ট দিবো। লেখার ঝামেলা হতে বাঁচার জন্য এ নিয়ে আজ দুপুরে একটা ভিডিও বক্তব্য রেকর্ড করেছি।

ইসলামপন্থীদের প্রচলিত ধ্যান-ধারণার তুলনায় আমার কথাগুলো যথেষ্ট রেডিকেল। সরাসরি বিপরীত উচ্চারণ। খোলামেলা কথা শোনার আগ্রহ ও ধৈর্য্য থাকলে ১ ঘণ্টা ৬ মিনিটের এই ক্লিপটা চেক করে দেখতে পারেন।

তবে, আল্লাহর ওয়াস্তে ভিডিওটা না দেখে মন্তব্য বা প্রশ্ন করে বসবেন না।

আগ্রহীদের মধ্য থেকে যাদের নেট কানেকশান দুর্বল তাদের জন্য বক্তব্যটার একটা অডিও লিংক দেয়া হলো: এখান থেকে ডাউনলোড বা প্লে করুন

কেন আমি ইসলামপন্থীদের সাথে বুদ্ধিবৃত্তিক তর্কে এনগেইজ হই না, তা নিয়ে বলতে গিয়ে তাঁদের বিরুদ্ধে আমার নিম্নোক্ত অভিযোগ বা আপত্তিসমূহকে সামগ্রিক দৃষ্টিকোণ থেকে আলোচনা করেছি:

১. একাট্টাভাবে পশ্চিমবিরোধী মনোভাব পোষণ ও সভ্যতাসমূহের পারষ্পরিক লেন-দেনের সম্পর্ককে অস্বীকার করা,

২. বিষয়নিষ্ঠতার পরিবর্তে ঐতিহাসিক পদ্ধতির ওপর অতিরিক্ত নির্ভরতা,

৩. মনুষ্যকেন্দ্রিকতার বাস্তবতাকে অস্বীকার করার চেষ্টা,

৪. ষড়যন্ত্র তত্ত্বে গভীর আস্থা,

৫. বিশ্লেষণী ধারার পরিবর্তে ইউরোপিয় ধারার অস্পষ্ট দর্শন নিয়ে পড়ে থাকা,

৬. ধর্ম, দ্বীন, তত্ত্ব, আদর্শ ও ইসলামের মধ্যে তালগোল পাকিয়ে ফেলা,

৭. রাষ্ট্রতান্ত্রিক, নৃতাত্ত্বিক কিংবা ধর্মীয় তাৎপর্যপূর্ণ জাতীয় দিবসগুলো উদযাপনের ব্যাপারে নেতিবাচক মনোভাব।

আলোচনাটার লিংক: (পিকচার কোয়ালিটি পুওর কিন্তু সাউন্ড কোয়ালিটি বেটার)
পর্ব ১: https://www.youtube.com/watch?v=7L6sWxlfJ_E
পর্ব ২: https://www.youtube.com/watch?v=x7-6o8knDFI
পর্ব ৩: https://www.youtube.com/watch?v=z1pw0JCX9WI

পুরো আলোচনাটা একসাথে এখানে পাবেন। পিকচার কোয়ালিটি বেটার হলেও সাউন্ড কিছুটা কম।
https://www.youtube.com/watch?v=5asr6DKYPzk&t=322s

লেখাটির ফেসবুক লিংক

মোহাম্মদ মোজাম্মেল হক

নিজেকে একজন জীবনবাদী সমাজকর্মী হিসেবে পরিচয় দিতে সবচেয়ে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করি। চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের দর্শন বিভাগে পড়াই। চাটগাইয়া। বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে থাকি।

“কেন আমি ইসলাম নিয়ে বুদ্ধিবৃত্তিক তর্কে এনগেইজ হই না” শীষক র্পোস্টে একটি মন্তব্য

  1. আসসালামু আলাইকুম ওয়া রহমাতুল্লাহ…

    (আমার মত) যাঁদের পঠনের সুযোগ অবারিত হলেও শ্রবন দর্শনের সুযোগ অতি সীমিত তাঁরা এ মূল্যবান আলোচনা থেকে মাহরুম হতে বাধ্য!

    বিযয়টি বিবেচনাযোগ্য হওয়ার দাবী রাখে!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *